দেওয়ান মশিউর রেজা চৌধুরী রিপন : যুবসমাজ ধ্বংস বা নষ্ট হবার পিছনে আমরাও দায়ী ! আসুন, আগে সমাজ বা সামাজিকতা নিয়ে কথা বলি, আপনি বা আপনারা নিজের কাছে নিজেই প্রশ্ন করে জেনে নিবেন, আপনি সমাজ বলতে কি বুঝেন এবং সমাজটা কোথায় থেকে শুরু হয় ? আমার কাছে আমার পরিবার একটি সমাজ এবং আমার পরিবার থেকেই সমাজ এবং সামাজিকতা শুরু! আসুন এখানে কিছু কথা বলে নেই এবং নিজেদের ভুল গুলো স্বীকার করে নেই, আমার পরিবার বলতে, আমি বলতে চাচ্ছি, মা-বাবা,দাদা-দাদি,চাচা-চাচী, ফুফু, ভাই-বোন বউ বাচ্ছা এবং বাড়ীতে যে গৃহকর্মী থাকেন থাকে নিয়েই আমার পরিবার আর এটাই আমার সমাজ। এবং এখান থেকে শুরু আমার সামাজিকতা! আমরা যদি একটু ভেবে দেখি তাহলে এখানেই খুজে পাবো সমাজের প্রতিটি স্থর! আমরা যেখান থেকে সমাজ, সামাজিকতা, ভদ্রতা, নৈতিকতা, মানবতা,  চলন-বলন শিখবো সেখানেই যদি এই গুলোর ভিন্নতা থাকে তাহলে বলুন, যে শিশু থেকে যুবক হয়েছে শুধু কি থাকেই দায়ী করবো? জন্মের পর থেকে যে শিশু ভাঙ্গন দেখে দেখে যুবক হয়েছে সেই যুবকের স্বপ্ন বাদার বা মনোবল কতো টুকু থাকবে বলুন? আমরা সবাই সুন্দর সমাজ চাই, সমাজে ন্যায্য অধিকার চাই, মৌলিক অধিকার চাইসহ ইত্যাদি দাবী আদায়ের জন্য মিছিল, মিটিং ও সমাবেশে যোগ দিয়ে গলাপাটিয়ে চিৎকার করি বা বক্তব্য দেই, মানবাধিকার নেতাদের চাপের মুখে সরকার আর মিডিয়ায় ফোলাও করে দাবী আদায়ে সংবাদ! বিশ্ববাসী যখন ভাবে, ঠিক তখনই নৈতিকতা আর মানবতা চিৎকার করে হেসে বলে, তোমার দেশে এতো বৃদ্ধাশ্রম কেন ? পিতা-মাতাহীন সন্তানরা রাস্তায় কেন? হাজার হাজার বাবা-মা, ভাই-বোন, ছেলে-মেয়েরা প্রাপ্য অধিকার থেকে বঞ্চিত কেন? এমন প্রশ্নে নিরব হয়ে যায় বিশ্ব বিবেক ! এখনো কি বলবেন যুবসমাজ ধ্বংস বা নষ্ট হবার পিছনে আমরা দায়ী নয় ? স্বীকার করছি প্রযুক্তির নষ্ট ভাইরাসে নষ্টের দিখে নিয়ে যাচ্ছে যুব সমাজকে! আমি সেখানেও মনে করছি আমরাই দায়ী! কারণ আমরা প্রযুক্তির নষ্ট ভাইরাস আবিষ্কারের আগেই আমরা শক্তিশালী এন্টিভাইরাস  গুলো কেটে ফেলেছি! হয় তো বা আমার কথাটি বুঝতে পারেন নাই! আমি এন্টিভাইরাস বলতে বুঝিয়েছি সেই যৌথ পরিবার আর শক্তিশালী এন্টিভাইরাসগুলো বলতে বুঝিয়েছি, দাদা-দাদি,চাচা-চাচী, ফুফু, চাচাতো ভাই-বোনদের। কারণ আমি মনে করি যৌথ পরিবার শুধু প্রযুক্তির নষ্ট ভাইরাসের এন্টিভাইরাসই নয়,  মানুষিক রোগের নিরাময়ক ঔষধ, নেশার নিরাময়ক কেন্দ্র এবং শক্তিশালী প্রশাসনিক দপ্তর।  সামাজিক অবক্ষয় একদিনে তৈরী হয়নি। আমি মনে করি নৈতিক অবক্ষয়ের মূল কারন হচ্ছে যৌথ পরিবার ভেঙ্গে যাওয়া।  এখানে আরেকটি কথা না বললেই নয় ধর্মবিমুখ হয়ে পরাই নৈতিকতার অবক্ষয়ের আরেকটি বড় কারণ। ধর্ম বিমুখ হওয়ার কারনে যুব সমাজকে আকাশ সংস্কৃতির চুম্বকের মতো অন্ধকারে দিখে টেনে নিয়ে যাচ্ছে। স্কুল, কলেজের শিক্ষার্থীদের মাঝে ইন্টারনেট গেমস, ইউটিব ও মাদকের ব্যপকতা উদ্বেকজনক হারে বেড়ে চলেছে। জীবন ও সভ্যতার জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি বলে আমি মনে করি। তাই আমি মনে করি এখনো সময় আছে ! আসুন, আমরা সময়োপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করি। আসুন, নিজেদের ভুলগুলো শুধরিয়ে আত্মীয়-স্বজনদের সাথে সুসম্পর্ক স্থাপন করি, তাদের পরিচয় করিয়ে দেই নিজের শেখরের সাথে। আসুন, তাদের দিকে বাড়িয়ে দেই ভালোবাসার হাত। আসুন, তাদের আস্থা ফিরিয়ে আনি। পরিচালিত করি সঠিক পথে। তাদেরকে বোঝাই তাদের দিকে চেয়ে আছে দেশ ও জাতি অপেক্ষা করছে বিশ্বস্বীকৃতি।

লেখক :  দেওয়ান মশিউর রেজা চৌধুরী রিপন ( সংক্ষেপে : ডিএম রেজা চৌধুরী রিপন)

কবি, সাহিত্যিক, সাংবাদিক, নাট্যকার, নাট্য নির্দেশক, মঞ্চ অভিনেতা, খেলোয়াড়, সংগঠক ও শিক্ষা অনুরাগী ।