দ্রুত বিচার নিশ্চিতে বিচারকের সংখ্যা বৃদ্ধির বিকল্প নেই: আইনমন্ত্রী

71

ঢাকা: আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, জাতীয় আইনগত সহায়তা সংস্থার মাধ্যমে ২০২০-২১ অর্থবছরে দেশের এক লাখ ৭৯১ অস্বচ্ছল ও সহায়সম্বলহীন মানুষকে আইনগত সহায়তা দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) জাতীয় সংসদে ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারীর টেবিলে উত্থাপিত লিখিত প্রশ্নোত্তরে আইনমন্ত্রী এ কথা জানান।আইনমন্ত্রী বলেন, ২০২০-২১ অর্থবছরে মোট বরাদ্দ পাঁচ কোটি টাকার মধ্যে দুই কোটি ৫৩ লাখ ৬৪ হাজার ৩১২ টাকা খরচ হয়েছে। তিনি বলেন, আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল, সহায়সম্বলহীন জনগণের আইনি অধিকার নিশ্চিত করতে সরকার ‘আইনগত সহায়তা প্রদান আইন, ২০০০’ প্রণয়ন করে। এরপর এই আইনের আওতায় ‘জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা’ প্রতিষ্ঠা করা হয়। তিনি আরও বলেন, দরিদ্র-অসহায় মানুষের আইনের আশ্রয় লাভের জন্য এই সংস্থার অধীনে জেলায় জেলা লিগ্যাল এইড অফিস স্থাপন করা হয়েছে।উল্লেখ্য, একাদশ জাতীয় সংসদের চতুর্দশ অধিবেশনে সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য মাসুদা এম রশীদের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনা অনুষ্ঠিত হওয়ায় দিনের অন্যান্য আলোচনা স্থগিত রাখা হয়। তবে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উত্থাপিত হয়। লক্ষ্মীপুর -৪ আসনের সংসদ সদস্য আবদুল মান্নানের অপর এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, সদ্য অবসরে যাওয়ার কারণে দেশের আদালসমূহের জেলা ও দায়রা জজ সমপর্যায়ের ৩টি পদ খালি রয়েছে।এছাড়া পদোন্নতির কারণে একটি অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ সমপর্যায়ের পদ এবং ৫৫টি যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ বা সমপর্যায়ের পদ খালি রয়েছে বলে সংসদে জানান আইনমন্ত্রী। এসময় তিনি আরও বলেন, দেশে দ্রুত বিচার নিশ্চিত করতে বিচারক সংখ্যা বৃদ্ধির কোনো বিকল্প নেই। ২০০৯ সাল থেকে দেশে অধস্তন আদালতে ১ হাজার ১২৮ জন বিচারক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে বলেও জানান আইনমন্ত্রী।