রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ,২০২০

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ০৮ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:১৫:১৬

ক্যাসিনো কাণ্ডে কর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে অনাগ্রহী বিসিবি

ক্যাসিনো কাণ্ডে কর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে অনাগ্রহী বিসিবি

স্পোর্টস ডেস্ক : ক্যাসিনো কাণ্ডে জেলে যাওয়া লোকমান হোসেন ভূঁইয়াকে নিয়ে না আবার কেউ কিছু জিজ্ঞেস করে বসে! বিব্রতকর পরিস্থিতি এড়াতে তাই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালকরা ইদানীং সংবাদমাধ্যম এড়িয়ে চলছেন। কেউ সামনে এলেও আসছেন শর্ত দিয়ে। মুখপাত্র জালাল ইউনুস যেমন কাল শর্ত দিলেন, বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) বাইরে আর কিছু নিয়ে প্রশ্ন করা যাবে না। অবশ্য বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের দুই কর্তাব্যক্তিকে নিয়ে প্রশ্নেও বেশ নড়বড়ে দেখিয়েছে মিডিয়া কমিটির প্রধান জালালকে। ওই দুজনের অনুপস্থিতিতে তো একরকম অনিশ্চয়তায় ভুগছে বিপিএল! বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের প্রধান শেখ সোহেল ও সদস্যসচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিকের কেউই এই মুহূর্তে দৃশ্যমান নন। তা নিয়ে জিজ্ঞাসার মুখে জালাল শুধু এটুকুই বলতে পারলেন, ‘আমি এটি বলতে পারছি না। এটি আমার জানার কথাও নয়। হয়তো তাঁরা কোনো ব্যক্তিগত কাজে বাইরে আছেন। তবে কাজ (বিপিএলের) কিন্তু থেমে নেই। কাজ চলছে, আমাদের ম্যানেজাররা কাজ করছেন। ’ প্রশ্নে প্রশ্নে একপর্যায়ে যৌক্তিক কারণেই চলে এলেন বিসিবির পরিচালনা পর্ষদে জালালের সতীর্থ লোকমানও। ক্যাসিনোর টাকায় যাঁর বিদেশের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফুলে-ফেঁপে ওঠার কথা তিনি নিজেই স্বীকার করেছেন র্যাবের কাছে। এর কয়েক দিন পর বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসানও লোকমানের বিষয়ে নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করতে গিয়ে ওই পরিচালকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আগে তাঁর ‘দোষী সাব্যস্ত হওয়া’ পর্যন্ত অপেক্ষা করার কথা বলেছেন। কিন্তু এরপর পরিস্থিতি বদলেছে অনেকটাই। গত কয়েক দিনে ক্যাসিনো কাণ্ডে জড়িতদের বিরুদ্ধে দোষী সাব্যস্ত হওয়ার আগেই কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। গ্রেপ্তার হওয়ার পরপরই ঢাকা মহানগর যুবলীগ দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট ও সহসভাপতি এনামুল হক আরমানকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এতেই স্পষ্ট যে প্রাথমিক প্রমাণের ভিত্তিতেই সরকার ব্যবস্থা নিয়েছে। সে ক্ষেত্রে অনৈতিক কর্মকাণ্ডে লোকমানের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেবে কি না বিসিবি, সে প্রশ্ন উঠতেই পারে। কাল উঠলও। জালাল এড়িয়ে না গিয়ে বললেন, ‘এই বিষয়ে মাননীয় সভাপতি কিছুদিন আগেই আপনাদের (বিসিবির অবস্থান) স্পষ্ট করেছেন। যদি উনি (লোকমান) দোষী সাব্যস্ত হন, তাহলে বিসিবি থেকেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমরা অপেক্ষা করছি। আর সিদ্ধান্ত নিতে হলে এটি বোর্ড সভায় আলোচনা করতে হবে। পরবর্তী বোর্ড সভায় আমরা এটি নিয়ে আলাপ করতে পারি। ’ অচিরেই সেই বোর্ড সভা হওয়ার খবর অবশ্য এখন পর্যন্ত নেই। তবে পরিচালনা পর্ষদের সভা করে লোকমানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সুযোগ বিসিবির গঠনতন্ত্রের ২৫ অনুচ্ছেদেই আছে। যে গঠনতন্ত্র আবার জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ (এনএসসি) অনুমোদিত। এই সংস্থার আইন কর্মকর্তা কবিরুল ইসলামের সঙ্গে কাল সন্ধ্যায় এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেছেন, ‘দোষী প্রমাণিত হওয়ার আগে কারো বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়াই ভালো। ’ সেই সঙ্গে তিনি এও যোগ করেছেন, ‘বিসিবির গঠনতন্ত্র দেখে বলতে পারলে ভালো হতো। আমি এই মুহূর্তে বাইরে। তবে গঠনতন্ত্র অনুমোদন করলে ব্যবস্থা নিতে পারে পরিচালনা পর্ষদও। ’ সেই ব্যবস্থা এখন বিসিবি নেবে কি না, প্রশ্ন সেটিই। যদিও ক্রিকেটার, ক্লাব ও ফ্র্যাঞ্চাইজিদের দমনে দেশের সর্বোচ্চ ক্রিকেট প্রশাসন যতটা তৎপর, পরিচালকদের ক্ষেত্রে ততটাই উন্নাসিক। ম্যাচ পাতানোর কথা স্বীকার করা মোহাম্মদ আশরাফুলকে দোষী সাব্যস্ত হওয়ার আগেই নিষিদ্ধ করেছিল তারা। নানা সময়ে শৃঙ্খলা ভঙ্গের জন্য তত্ক্ষণাৎ শাস্তি পেয়েছেন সাকিব আল হাসানের মতো ক্রিকেটারও। নিচের পর্যায়ের ক্রিকেটে পক্ষপাতমূলক আম্পায়ারিংয়ের প্রতিবাদ করে লম্বা সময়ের জন্য নিষিদ্ধ হওয়া ক্রিকেটার যেমন আছেন, তেমনি রয়েছে ক্লাবও। চুক্তি শেষ হয়ে গেলেও বিপিএলের পরের চক্রে সব শেষ ফ্র্যাঞ্চাইজিদেরই গুরুত্ব পাওয়ার কথা। কিন্তু যৌক্তিক দাবিও মানতে নারাজ বিসিবি তাঁদের ছাড়াই এবার বিপিএল আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিতেও বিলম্ব করেনি। অন্যান্য ক্ষেত্রে তাঁরা খুবই তৎপর হলেও পরিচালকের বিষয়ে তা নয়। অথচ বিভিন্ন সময়ে বোর্ড পরিচালকদেরও শৃঙ্খলাভঙ্গের নজির আছে। তবে সব শেষ ঘটনায় সবাইকে ছাড়িয়ে গেছেন বিসিবির ফ্যাসিলিটিজ কমিটির প্রধান লোকমান। ক্যাসিনো কাণ্ডে জড়িত অন্যান্যরা নিজের দল থেকে বহিষ্কৃত হলেও এই সংগঠক ক্রিকেট প্রশাসনে স্বপদেই বহাল এখনো।

https://web.facebook.com/Somoy-news

  0

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন,মাদক সম্রাটতো সংসদেই আছে। তাদেরকে বিচারের মাধ্যমে আগে ফাঁসিতে ঝুলান। আপনি কি একমত?