রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

শনিবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৭, ১০:৩৪:২৪

দাম্পত্য জীবনে একঘেয়েমি? জেনে নিন উষ্ণতা ফেরানোর সহজ উপায়

দাম্পত্য জীবনে একঘেয়েমি? জেনে নিন উষ্ণতা ফেরানোর সহজ উপায়

লাইফস্টাইল ডেস্ক : বিয়ের পরে প্রথম কয়েকমাস মধুচন্দ্রিমা পর্ব। প্রথম দু’-এক বছরেও হয়তো প্রেমে ঘাটতি হয় না। তার পরেই যেন সব কিছু যান্ত্রিক হয়ে যায়, একঘেয়েমি গ্রাস করে দু’জনকে।

 

দাম্পত্যজীবনে কীভাবে ফিরিয়ে আনবেন একে অপরের প্রতি হারিয়ে যাওয়া টান এবং বোঝাপড়া?  রইল ১০টি টিপস

 

 

১. মাঝেমধ্যেই কাছাকাছি আসুন। আপনার সঙ্গী বা সঙ্গিনীর হাতে হাত রাখুন, বা এমনিই একটু জড়িয়ে ধরুন। চুমু খান অথবা কাঁধে হাতটা আলতো করে ঘষে দিন। জড়িয়ে ধরলে চেষ্টা করুন পাঁচ থেকে দশ সেকেন্ডের আগে প্রিয় মানুষটিকে ছাড়বেন না।

 

২. সব বিষয়ে দু’টো মানুষ সবসময়ে একমত হতে পারেন না। নিজের পছন্দ না-হলেও অপরের মতকে সম্মান দিতে শিখুন।

 

৩. সঙ্গীর জন্য গিফট কিনলে কত দামী গিফট দিলেন সবসময়ে সেটা মাথায় রাখবেন না। বরং কী দিচ্ছেন এবং কীভাবে সেটা প্রিয় মানুষটির কাছে পৌঁছে দিচ্ছেন, সেটাই আসল। পার্স বা অফিসব্যাগের মধ্যে গিফটটা লুকিয়ে রাখুন। যাতে আচমকা সেটা হাতে পেয়ে প্রথমেই আপনার কথা মনে পড়ে এবং সঙ্গীর গোটা দিনটাই বদলে যায়।

 

৪. পুরুষদের স্ত্রীর কথা শোনার ধৈর্য্য থাকা উচিত। সবসময়ে স্বামীরাই সংসারের সব সমস্যার সমাধান করবেন এমনটা নয়। আবার স্ত্রীদেরও উচিত কোনও বিষয় গুছিয়ে নেওয়া অথবা বোঝার জন্য স্বামীদের পর্যাপ্ত সময় দেওয়া।

 

৫. দাম্পত্যে একঘেয়েমি, বেডরুমে নতুনত্ব খুঁজে না পাওয়া, দু’জনের মধ্যে কথা কমে যাওয়া, একে অপরের প্রতি ক্ষোভ— এই সমস্যাগুলো চিহ্নিত করতে পারলেই সম্ভাব্য যে যে উপায়ে এগুলোর সমাধান করা যায়, চেষ্টা করে দেখুন। তা সে যতই অবাস্তব বা হাস্যকর উপায় হোক না কেন। আপনার চেষ্টা বিফলে তো যাবেই না, বরং স্বামী-স্ত্রীর বন্ধন আরও মজবুত হবে।

 

৬. দাম্পত্য জীবনে দু’জনের সম্পর্কটাকেই সবথেকে বেশি অগ্রাধিকার দিন। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে অনেকেই কেরিয়ার, সন্তানদের ভবিষ্যতের মতো বিষয়গুলিকে অগ্রাধিকার দিতে শুরু করেন। আর তা থেকেই অধিকাংশ ক্ষেত্রে সমস্যার সূত্রাপাত হয়। মনে রাখবেন, বিবাহিত জীবনে আপনার এবং আপনার সঙ্গীটির সম্পর্কের উর্দ্ধে কোনও কিছুই নয়।

 

৭. আপনার সঙ্গীটি যদি আপনার সঙ্গে ভালভাবে কথা বলেন, ভাল ব্যবহার করেন, তাহলে আপনিও নিশ্চয়ই তাঁর সঙ্গে একইভাবে মিশবেন। এই কথাগুলো মাথায় রেখে আপনিও আপনার সঙ্গীর সঙ্গে ভালভাবে কথা বলুন, তাঁর সঙ্গে ভাল ব্যবহার করুন। শুরুটা না হয় আপনার দিক থেকেই হোক। উল্টোদিক থেকেও ভাল সাড়া পাবেন।

 

৮. বিয়ের পর পর হয়তো অনেকেই করে। কিন্তু দাম্পত্য জীবন কিছুটা পুরনো হয়ে গেলেও সঙ্গীর প্রকৃত কোনও গুন বা ভালদিকের স্বতঃস্ফূর্ত প্রশংসা করুন। ঠিক যেমনটা শুরুর দিকে করতেন।

 

৯. বিয়ের পরেও ডেটিংয়ের অভ্যাসটা বজায় রাখুন। খুব একটা আদিখ্যেতা বা লোক দেখানো কিছু করার দরকার নেই। কিন্তু চার দেওয়ালের পরিচিত জগতের বাইরে দু’জনে দেখা করুন। হয়তো আপনাদের প্রেমের শুরুর দিনগুলো মনে পড়ে যাবে।

 

১০. রোজকার একঘেয়েমিতে একটু বদল আনুন। যেমন দু’জনে একসঙ্গে রান্না করতে পারেন অথবা ব্যাডমিন্টনের মতো কোনও খেলাও খেলতে পারেন। আর কিছু না হোক, সঙ্গীকে মাঝেমধ্যে মজার কোনও জোকস বলুন।



 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, বর্তমানে দেশের মানুষের ক্রয়ক্ষমতা নাগালের বাইরে চলে গেছে। আপনি কি একমত?