মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ,২০১৯

Bangla Version
  
SHARE

বুধবার, ২৪ জুলাই, ২০১৯, ০২:০২:২০

কর্নাটকে কংগ্রেস ও জেডিএস দলীয় জোট সরকারের পতন ঘটেছে

কর্নাটকে কংগ্রেস ও জেডিএস দলীয় জোট সরকারের পতন ঘটেছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের কর্নাটক রাজ্যের কংগ্রেস ও এইচডি কুমারস্বামীর জেডিএস দলীয় জোট সরকারের পতন ঘটেছে। এ ঘটনায় রাজ্যটির ক্ষমতায় বিজেপির ফিরে আসার পথ পরিষ্কার হয়েছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি। মঙ্গলবার রাজ্যের বিধানসভায় আস্থা ভোটে কুমারস্বামীর জোট সরকার হেরে যায়। তাদের পক্ষে ৯৯ ভোট ও বিপক্ষে বিজেপির ১০৫ ভোট পড়ে। আস্থা ভোটের সময় বিএসপির বিধায়ক এন মহেশ উপস্থিত না থাকায় তাকে দল থেকে বহিষ্কার করেছেন দলনেত্রী মায়াবতী। কংগ্রেস ও জনতা দল সেক্যুলারের ১৪ মাস বয়সী জোট সরকারের পতনের পর একে ‘কর্মের খেলা’ বলে মন্তব্য করেছে বিজেপি। দুই সপ্তাহ সময়ের মধ্যে কংগ্রেস- জেডিএসের ১৬ বিধায়কের পদত্যাগ ও সরকারের ওপর থেকে দুই স্বতন্ত্র বিধায়কের সমর্থন প্রত্যাহারের পর আস্থা ভোটের দাবি ওঠে। শুক্রবার আস্থা ভোটের কথা থাকলেও কালক্ষেপণের পর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ভোট গ্রহণ করা হয়। কুমারস্বামী সরকারের পতনের পর রাজ্য বিজেপি প্রধান বিএস ইয়েদুরাপ্পা চতুর্থবারের মতো কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন। “এটি গণতন্ত্রের বিজয়। কুমারস্বামীর সরকারের ওপর জনগণ বিরক্ত হয়ে উঠেছিল। উন্নয়নের নতুন পর্ব শুরু হচ্ছে, কর্নাটকের জনগণকে এই আশ্বাস দিতে চাই,” বলেছেন ইয়েদুরাপ্পা। এক টুইটে রাজ্য বিজেপি বলেছে, “কর্নাটকের জনগণের জয় হয়েছে। দুর্নীতি ও অপবিত্র জোট পর্বের ইতি ঘটেছে। কর্নাটকের জনগণকে স্থিতিশীল ও সক্ষম সরকারের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি আমরা।” সন্ধ্যায় আস্থা ভোটে হারার পর রাতেই রাজ্যপাল বাজুভাই বালার কাছে পদত্যাগ পত্র জমা দেন বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামী। “আমি এখন ভারমুক্ত। সবচেয়ে সুখী মানুষ,” বলেছেন তিনি, জানিয়েছে আনন্দবাজার পত্রিকা।

https://web.facebook.com/Somoy-news

আজকের প্রশ্ন

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন,মাদক সম্রাটতো সংসদেই আছে। তাদেরকে বিচারের মাধ্যমে আগে ফাঁসিতে ঝুলান। আপনি কি একমত?