শুক্রবার, ২২ জুন ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৭, ০৬:৫৪:১৭

ঘুষ না পেয়ে যুবককে মাদক মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়ার অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে

ঘুষ না পেয়ে যুবককে মাদক মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়ার অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে

সাভার প্রতিনিধি : এক যুবককে আটকের পর ঘুষের টাকা না পেয়ে তাকে মাদকের মামলায় জড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল আজিজের বিরুদ্ধে। আটককৃত আমিনুলকে (২৫) বিনা কারণে আটকের পর পুলিশকে টাকা না দেওয়ায় এই মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়ার অভিযোগ করেছেন তার বাবা ইয়ারপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য সফুর উদ্দিন।

 

ভুক্তভোগী এই পারিবারের অভিযোগ, আশুলিয়ার ইয়ারপুর ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য সফুর উদ্দিনের কলেজ পড়ুয়া ছোট ছেলে পাপ্পু উত্তরার মাইলস্টোন কলেজ থেকে বুধবার (১৮ই অক্টোবর) রাতে ৯টার দিকে বাসায় ফিরছিল। পথে বুড়িপাড়া এলাকায় নিজ বাড়ির পাশে আসলে পুলিশের সোর্স রাজীবের সঙ্গে তার কথা কাটাকাটি হলে দু’জনের মধ্যে বাকবিতন্ডায় স্থানীয় লোকজন জড়ো হয়। এসময় স্থানীয়দের তোপের মুখে ওই সোর্স ঘটনাস্থল থেকে চলে গেলেও কিছুক্ষণ পর আশুলিয়া থানার এসআই আজিজকে সঙ্গে নিয়ে ঘটনাস্থলে এসে তাকে আটকের চেষ্টা করে।

 

এসময় সফুর উদ্দিনের বড় ছেলে আমিনুল ইসলামকে আটক করে থানায় নিয়ে যায় এসআই আজিজ। এরপর ৫০ হাজার টাকা দিয়ে তাকে ছেড়ে দেওয়া হবে, অন্যথায় টাকা না দিলে তাকে মাদকের মামলায় জাড়িয়ে দেওয়ার হুমকিও দেয় পুলিশ।

 

সাবেক এই ইউপি সদস্য অভিযোগ করে বলেন, তার ছেলে কোনও অন্যায় করেনি। বিনা কারণে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়াও তাকে ছাড়িয়ে নেওয়ার জন্য ওই পুলিশ সোর্সের মাধ্যমে ৫০ হাজার টাকা ঘুষ দাবী করা হয় তার কাছে। কিš‘ টাকা না পেয়ে শুক্রবার তার ছেলেকে কোর্টে চালান করে দেওয়া হয়। পুলিশ সোর্স রাজীব তার প্রভাব দেখানোর জন্য এসআই আজিজকে দিয়ে এমন মিথ্যা মাদক মামলা সাজিয়ে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

 

তবে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল আজিজের দাবী, বুধবার রাত ১০টার দিকে আমিনুলের কাছ থেকে ৫২ পিস ইয়াবা পাওয়া যায়। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার আশুলিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের হয়।

 

এদিকে, বুধবার রাতে আমিনুলকে আটক করা হলেও আজ শুক্রবার দুপুরে তাকে কোর্টে চালান দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন আশুলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল আওয়াল।

 

অভিযোগের বিষয়ে সাভার সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এডিশনাল এসপি) খোরশেদ আলম বলেন, ‘বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

 

 

 

 

 

 



আজকের প্রশ্ন

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন,মাদক সম্রাটতো সংসদেই আছে। তাদেরকে বিচারের মাধ্যমে আগে ফাঁসিতে ঝুলান। আপনি কি একমত?