সোমবার, ২৫ মে ,২০২০

Bangla Version
  
SHARE

বুধবার, ১০ জুলাই, ২০১৯, ০৩:২৩:৪১

শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকি, রোহিঙ্গাসহ গ্রেপ্তার- ৪

শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকি, রোহিঙ্গাসহ গ্রেপ্তার- ৪

ডেস্ক রিপোর্ট: ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকি দাতা রোহিঙ্গা সহ চার সন্ত্রাসীকে আটক করেছে মালয়েশিয়ার আইনশৃঙ্খলাবাহিনী। মঙ্গলবার মালয়েশিয়ার পুলিশের মহাপরিদর্শক দাতুক সেরি আব্দুল হামিদ বদর এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানান। ৯ জুলাই দেশটির শীর্ষ স্থানীয় অনলাইন পোর্টাল মালয় মেইলে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সোস্যাল মিডিয়ায় হত্যার হুমকি দিয়ে ভিডিও ছড়িয়ে দিয়েছিল ৪১ বছর বয়সী এক রোহিঙ্গা। এর সূত্র ধরে হুমকি দাতাসহ চার সন্ত্রাসীকে আটক করে দেশটির কাউন্টার টেররিজম বিভাগ (ই-৮)। খবরে বলা হয়, এ চার সন্ত্রাসী চরমপন্থী গ্রুপের সঙ্গে জড়িত, যার মধ্যে একজন রোহিঙ্গা, যিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার একটি ভিডিও আপলোড করে। পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল দাতুক সেরি আব্দুল হামিদ বদর এক বিবৃতিতে বলেন, ২৪ জুন হুমকি দাতা ও রোহিঙ্গা নাগরিককে কেদা সুঙ্গাই পেটানি থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পুলিশ সূত্রে এই রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী ১৯৯৭ সালে মালয়েশিয়ায় আসে। ২০১২ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত মানব পাচার ও  চোরাচালান কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিল। ১৪  জুন থেকে ১৩ জুলাই পর্যন্ত সন্দেহভাজনদের উপর ( ক্র্যাডডাউন )অনুসরণ করে আসছিল টেররিস্ট বিভাগ। এসময় গ্রেপ্তার করা হয় আরো তিনজনকে। ১৪ জুন, কিলাং সেলাঙ্গুর থেকে ৫৪ বছর বয়সী একজন ফিলিপিনো ইলেক্ট্রিশিয়ানকে গ্রেপ্তার করা হয়। ওই ফিলিপিনো কুখ্যাত আবু সাইয়াইফ সন্ত্রাসী দলের সঙ্গে জড়িত থাকার কারণে আটক হন। প্রাথমিক তদন্তে সন্দেহ করা হয়েছে যে, সাবাহ সারওয়ার বিরুদ্ধে মানব অপহরণের অভিযোগ রয়েছে। আবদুল হামিদ বলেন, ইস্টার্ন সাবা সিকিউরিটি কমান্ড (ইএসএসকম) পুলিশকে জানায় তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ছিল। পুলিশ জানায়, যার বয়স ২৪ বছর এবং ওই ব্যক্তি ভারতীয় নাগরিক। ২০১৮ সালের নভেম্বরে মালয়েশিয়ায় প্রবেশ করে এবং ওই সন্ত্রাসী গ্রুপের পেছনে সে সাত হাজার ৬০০ আর এম খরচ করে।

এই বিভাগের আরও খবর

https://web.facebook.com/Somoy-news

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের প্রশ্ন

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন,মাদক সম্রাটতো সংসদেই আছে। তাদেরকে বিচারের মাধ্যমে আগে ফাঁসিতে ঝুলান। আপনি কি একমত?